ঢাকা শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪

বিসিবি থেকে সরে যাচ্ছেন পাপন


সোলায়মান হোসাইন নিজস্ব প্রতিবেদক photo সোলায়মান হোসাইন নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১-১-২০২৪ রাত ৮:৩৩
ছবি সংগৃহীত
ছবি সংগৃহীত

এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি হিসেবে আছেন নাজমুল হাসান পাপন। এর আগে টানা কয়েকবার এমপি হলেও এতদিন মন্ত্রিত্ব পাননি এই ক্রীড়া সংগঠক। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আজ (বুধবার) ঘোষিত মন্ত্রীদের তালিকায় রয়েছে বিসিবি সভাপতির নাম। ২৫ জন পূর্ণ মন্ত্রীর মধ্যে পাপনও একজন। 

পাপনের নাম ঘোষিত হওয়ার পর আলোড়ন তৈরি হয়েছে দেশের ক্রীড়াঙ্গনে। পূর্ণ মন্ত্রী হওয়ার পর থেকে আলোচনায়- পাপন বিসিবি সভাপতি পদে থাকছেন তো? যদিও মন্ত্রিত্বের সঙ্গে বোর্ড সভাপতি থাকার বিষয়টি সাংঘর্ষিক নয়। ক্রিকেট বোর্ডে তিনি চার বছরের জন্য সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। ২০২৫ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিসিবি সভাপতি পদে মেয়াদ রয়েছে তার।

ক্রিকেট বোর্ড ও ক্রীড়া আইনে মন্ত্রিত্ব পেলে কোনো ফেডারেশনের সভাপতিত্ব করা যাবে না— এমন কোনো নিয়ম নেই। ২০১৩ সাল থেকে ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নির্বাচিত হচ্ছে। এর আগে ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি সরকার কর্তৃক মনোনীত ছিল। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সরকারের অনেক মন্ত্রী দায়িত্ব পালন করেছেন। ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক সভাপতির তালিকায় থাকা আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, আবু সালেহ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান ও সাবের হোসেন চৌধুরী মন্ত্রিত্ব এবং বোর্ড সভাপতি উভয় পদেই একসঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। 

আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ১৯৮৭-৯০ সাল পর্যন্ত বিসিবির সভাপতি ছিলেন। ওই সময় তিনি দায়িত্বে ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের। বোর্ড সভাপতি ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী উভয় পদে আনিস মাহমুদের উত্তরসূরি আবু সালেহ মোহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান। ১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত বিসিবির সভাপতি ছিলেন সাবের হোসেন চৌধুরী। বিসিবি সভাপতির দায়িত্ব পালনকালে তিনি নৌ-পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী ছিলেন।

জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আরিফ খান জয় ২০১২ সালে বাফুফের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে নেত্রকোনা থেকে এমপি হয়ে যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রীও হয়েছিলেন তিনি। উপমন্ত্রী হলেও ফেডারেশনের সহ-সভাপতি হিসেবে মেয়াদ পূর্ণ করেন।

এদিকে, নব্বইয়ের দশকে বিসিবি সভাপতিদের মধ্যে কয়েকজন মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন। ২০০১ সাল পরবর্তী সময়ে কোনো মন্ত্রী বিসিবির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেননি। আ হ ম মোস্তফা কামাল বিসিবি সভাপতির দায়িত্ব ছাড়ার পর মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন।

বর্তমানে ক্রিকেটে জনসম্পৃক্ততা এবং আন্তর্জাতিক ব্যাপ্তি অনেক বেশি। তাই মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি ক্রিকেট বোর্ডও সামলানোটা বড় চ্যালেঞ্জ হবে পাপনের জন্য। দুটি বড় দায়িত্ব সামলানো কঠিন বিধায় তিনি বিসিবি সভাপতি থেকে পদত্যাগ করতে পারেন বলে ধারণা ক্রীড়াঙ্গনের।

গত দুই দশকে ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি কোনো মন্ত্রী ছিলেন না। তবে অন্য ফেডারেশনগুলোর সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করেছেন বেশ কয়েকজন মন্ত্রী। ফুটবল, ক্রিকেট বাদে দেশের প্রায় সব ফেডারেশনই এখন নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক নির্ভর। সভাপতি পদটি মনোনীত। ওই পদে সরকার (ক্রীড়া মন্ত্রণালয়) অনেক সময় সভাপতি পদে মন্ত্রীদের মনোয়ন দেয়। 

আজ ঘোষিত ২৫ জন পূর্ণ মন্ত্রীর মধ্যে পাপনের নাম থাকলেও নেই মন্ত্রণালয়ের নাম। বিসিবিতে পাপনের ঘনিষ্ঠ অনেকের মতে, খুব সম্ভবত পাপন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেতে পারেন। বিসিবি’র সাবেক সভাপতি আ হ ম মোস্তফা কামালও পরিকল্পনা মন্ত্রী ছিলেন। ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে সাধারণত প্রতিমন্ত্রী দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। তাই পাপন ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে আসছেন না বলে অনেকটাই নিশ্চিত।

Newsdesk / Newsdesk